নিজ বাড়ির আঙিনায় শায়িত হলেন কাঁকন বিবি

54

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :

মুক্তিযোদ্ধা নূরজাহান কাঁকন বিবি নিজ বাড়ির আঙিনায় চির নিদ্রায় শায়িত হলেন । বৃহস্পতিবার বিকলে ৪টায় সুনামগঞ্জের দোয়ারা বাজার উপজেলার লক্ষীপুর ইউনিয়নের জিরাগাঁওয়ে বাড়ির আঙিনায় তাকে দাফন করা হয় ।

 

বৃহস্পতিবার দুপুরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে অ্যাম্বুলেন্স যোগে তাকে নিয়ে আসা হয় জিারাগাও গ্রামে । মরদেহ বাড়িতে নিয়ে আসা হলে কাকন বিবির আতœীয়স্বজনরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। শেষ বারের মত সুনামগঞ্জসহ বৃহত্তর সিলেট বিভাগের মুক্তিযোদ্ধাসহ নানা শ্রেণি পেশার মানুষ শেষ বারের মত তাকে দেখতে তার বাড়িতে ভীড় জমান।

বিকাল সাড়ে ৩টায় লক্ষীপুর ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাশের মাঠে তার নামাজের জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার আগে প্রশাসনের পক্ষ জেলা প্রশাসক সাবিরুল ইসলাম, পুলিশ সুপার বরকত উল্লাহ খান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী বীরপ্রতীক মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান জানান।

এছাড়া বাড়ির উঠনে মরদেহ রাখা হলে বিভিন্ন রাজিৈনতক ও সামাজিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের মানুষ ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। পরে তাকে নিজ বাড়ির আঙিনায় তাকে দাফন করা হয়।

কাকন বিবির এক মাত্র মেয়ে ছকিনা বিবি বলেন, আমার মায়ের শেষ ইচ্ছা পূরণ হয় নাই। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু বিছানায় থেকেই চলে গেছেন আমাদের সবাইকে ছেড়ে। আমার মায়ের জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চাচ্ছি।

বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সুনামগঞ্জ জেলা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আবু সুফিয়ান বলেন, বীর প্রতীক খেতাবে ঘোষিত হলেও গেজেট আকারে প্রকাশ হয়নি কাকন বিবির নাম। মৃত্যুর আগেও যদি গেজেট প্রকাশ হত তাহলে অনেক খুশি হতেন তিনি।

জানাজার পূর্বে জেলা প্রশাসক সাবিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, স্বাধীনতার মাসে আমরা একজন খেতাব প্রাপ্ত বীর মুক্তিযোদ্ধাকে হারিয়েছি। তার খেতাবটি গেজেট আকারে হয় নি। কিন্তু আমরা সেই প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তার অবস্থা আশংকা জনক শোনার পর আমরা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিবের সাথে এবিষয়ে কথা বলেছি।

বুধবার রাতে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন নূরজাহার কাকন বিবি।