রাজধানীতে শিয়ালকাণ্ড : ৯৯৯-এ ফোন করে পাঁচ ঘণ্টা পর উদ্ধার

40

ভোরে বাড়ির নিচতলায় নিরাপত্তাকর্মীর কক্ষে নড়াচড়ার শব্দ। নিরাপত্তাকর্মী আব্দুর রহমান দেখতে পান ছোটাছুটি করছে একটি শিয়াল। একপর্যায়ে নিরাপত্তাকর্মীর দিকেই তেড়ে আসছিল শিয়ালটি। তার চিৎকারে পুরো ফ্ল্যাটের লোকজন জেগে উঠে নিচতলায় জড়ো হয়। তারা নানা উপায়ে শিয়ালটিকে বাড়ি থেকে বের করার চেষ্টা করে। তবে ‘পণ্ডিত’ শিয়ালের কাণ্ডে উল্টো ভয় পায় সবাই।

একপর্যায়ে শিয়ালটি সিঁড়ির নিচে পানির পাম্পে আশ্রয় নেয়। শেষে বাড়ির মালিক ৯৯৯-এ ফোন করে সহায়তা চান। সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা পাঁচ ঘণ্টা পর উদ্ধার করেন শিয়ালটিকে।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর তুরাগ থানার উত্তরার ১০ নম্বর সেক্টরের ১৩ নম্বর সড়কের ৮১ নম্বর বাড়িতে এ ঘটনাটি ঘটে।

বাড়ির মালিক প্রকৌশলী জাবেদ আলী বলেন, গতকাল ভোরে নিরাপত্তাকর্মী আব্দুর রহমানের চোখ ফাঁকি দিয়ে শিয়ালটি ঢুকে পড়ে। লোকজন দেখে শিয়ালটি আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠে। সেই কক্ষ থেকে শিয়ালটি চলে যায় সিঁড়ির নিচে পানির পাম্পের কাছে। আতঙ্কিত হয়ে জেগে ওঠে ভবনের সব ফ্ল্যাটের লোকজন।

নানা উপায়ে বের করার চেষ্টা চলে শিয়ালকে। কিন্তু সব চেষ্টাই ব্যর্থ হয়। এভাবে চার ঘণ্টা চলে যাওয়ার পর জাবেদ আলী ৯৯৯-এ ফোন করে সহায়তা চান।

উত্তরা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার সফিকুল ইসলাম বলেন, সকাল পৌনে ১১টার দিকে তাঁরা শিয়াল ধরার কাজ শুরু করেন। প্রথম পরিকল্পনা করেন শিয়ালটিকে বের করার।

বেশ কিছু সময় তাঁরা চেষ্টাও চালাচ্ছিলেন। কিন্তু শিয়াল বের হচ্ছিল না। প্রায় এক ঘণ্টা চেষ্টার পর ওই শিয়ালকে ধরেন সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা। এ সময় উত্সুক জনতা সেটি দেখতে ভিড় করে।

সিভিল ডিফেন্সের কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘তুরাগ নদের তীর থেকে খাবারের খোঁজে শিয়ালটি বাড়িটিতে ঢুকে থাকতে পারে। শিকারের পেছনে ছুটতে গিয়েও পথ হারিয়ে আসতে পারে। বেশ ক্ষিপ্ত ছিল প্রাণীটি। পরে শিয়ালটিকে দুই কিলোমিটার দূরে ১৮ নম্বর সেক্টরের উন্মুক্ত স্থানে ছেড়ে দেওয়া হয়। শিয়ালটি বেশ বড়। লম্বায় প্রায় তিন ফুট।’

প্রসঙ্গত, সম্প্রতি রাজশাহীর এক বাড়িতে একটি পাখি ও একটি সাপ উদ্ধারের অভিযানও চালায় সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা। সেসব ঘটনাও ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি করে।