টেস্ট দলে মাশরাফিকে দেখতে চান সাকিব

68

বেশ কিছুদিন ধরেই টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে টেস্ট ক্রিকেটে ফেরানোর চিন্তা ভাবনা চলছে। মাশরাফি নিজেও টেস্ট খেলার প্রতি ইচ্ছা ও সেই সেই সামর্থ্যও আছে বলে বিশ্বাস করেন। অনেকেই মনে করেন ওয়ানডের পাশাপাশি টেস্টে ফিরলেও খারাপ করবেন না মাশরাফি। সেই অনেকের দলে বাংলাদেশের বর্তমান টেস্ট অধিনায়ক সাকিব আল হাসানও রয়েছেন।

শুধু সাকিব নয়, বাংলাদেশ দলের সাবেক অধিনায়ক ও বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বর্তমান ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ নিজেও মাশরাফিকে ক্রিকেটের সব ফরম্যাটেই দেখতে চান। খালেদ মাহমুদই জানালেন সাকিবের সঙ্গে এক আড্ডাতেই উঠেছিল মাশরাফিকে টেস্টে ফেরানোর প্রসঙ্গ।

তিনি বলেন, ‘‘একদিন সাকিবই গল্পচ্ছলে বলছিল যে, ‘সুজন ভাই, মাশরাফি ভাই হলে তো ভালোই হয়। খারাপ হয় না। টেস্ট ম্যাচে নতুন বলে ৫-৬ ওভার বোলিং করবেন। মাঝখানে করবেন আরেকটি স্পেল। সারা দিনে যদি ১৫-১৬ ওভার বোলিং করে দিতে পারেন, আমি তাতেই খুশি। উনি থাকলে খুবই ভালো হয়। টেস্ট ম্যাচের ব্যাটিংটাও একটু পারেন। নতুন বলে ওনার চেয়ে ভালো বোলিং তো কেউ করে না। খুব ভালো জায়গায় বোলিং করেন। টেস্ট ম্যাচের জন্য একেবারে আদর্শ লাইন বলতে যা বোঝায়, তিনি বোলিং করেন সেই লাইনেই।’’

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের কথা মাথায় রেখেই সাকিবের মনে উঁকি দিয়েছিল মাশরাফিকে টেস্টে ফেরানোর চিন্তা। যদিও এরপর আর তেমন অগ্রগতি নেই বলেও জানান খালেদ মাহমুদ। তিনি বলেন ‘এই কথা সাকিব দুই-তিন মাস আগে বলেছে। অবশ্য ওই গল্প হওয়া পর্যন্তই। এরপর আর বিষয়টি এগোয়নি। তাছাড়া মাশরাফি টেস্ট খেলতে চায় কি না, সেটিও তো একটা বড় ব্যাপার।’

মাত্র এক বছর পর একটি ফার্স্ট ক্লাস ম্যাচ খেলেই কি টেস্ট ম্যাচের দাবি মেটানো সম্ভব মাশরাফির পক্ষে এমন প্রশ্নের উত্তরে মাহমুদ জানান, ‘মাশরাফির ইচ্ছাশক্তি সাংঘাতিক। আমি নিশ্চিত, ও টেস্ট খেললে পারফরমও করবে।’

উল্লেখ্য গত মার্চে শ্রীলঙ্কায় ত্রিদেশীয় নিদাহাস টি-টোয়েন্টি ট্রফির আগে তাকে সংক্ষিপ্ততম ফরম্যাটে ফেরার প্রস্তাব দেওয়া হলেও মাশরাফি সায় দেননি তাতে। যেহেতু গত বছর তাকে এই ফরম্যাট থেকে একরকম জোর-জবরদস্তি করেই বিদায় দেওয়া হয়েছিল। তাই মাশরাফি বিন মর্তুজাকে টেস্ট ক্রিকেটে আদৌ ফিরবেন কিনা তা নিয়ে আসলেই এই মুহূর্তে নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।