ট্যাঙ্কি থেকে ওয়াসার পানি সরাসরি জারে

71

অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে পানি প্রক্রিয়াজাতকরণ এবং ট্যাঙ্কি থেকে ওয়াসার পানি সরাসরি জারে ভরার অভিযোগে একটি পানি উৎপাদন কারখানাকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। অনাদায়ে তিন মাসের জেলও দেওয়া হয়েছে। গতকাল দুপুরে রাজধানীর ভাটারার নতুন বাজার এলাকায় ওই কারখানায় অভিযান চালায় ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মশিউর রহমানের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত। বিএসটিআইয়ের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে এই অভিযান চালানো হয়। কারখানা অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে পানি প্রক্রিয়াজাত করতে দেখেন তারা। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানটি সিলগালা করা থাকবে বলে জানিয়েছেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মশিউর রহমান বলেন, ‘ট্যাঙ্কি থেকে সরাসরি পানি বোতলে যাচ্ছে। মাঝে যে প্রক্রিয়াগুলো করার কথা, তা করা হচ্ছে না। সেক্ষেত্রে বিএসটিআইএর যে সংশ্লিষ্ট ইন্সপেক্টর অভিযানে রয়েছেন তিনি যে নির্দেশনা দিয়েছেন সে মোতাবেক দেড় লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের বিনাশ্রম জেল দেওয়া হয়েছে।’ অভিযানের শুরুতে বাইরে থেকে দেখে কারও বোঝার উপায় নেই ভিতরে পানির প্রক্রিয়াজাত কারখানা। ভিতরে ঢুকতেই সবার চোখ রীতিমতো কপালে ওঠার দশা। পানি পরিশোধনের জন্য নেই কোনো ব্যবস্থা, নেই ল্যাব বা কোনো কেমিস্টও। ওয়াসার পাইপ থেকে সংগ্রহে রাখা ট্যাঙ্কি থেকে পানি সরাসরি ভরা হচ্ছে জারে। রাজধানীর নতুন বাজার প্রগতি সরণি থেকে অনেকটা ভিতরে ভাটারা থানা এলাকার ছোলমাইদ হাতিবাড়িতে পানির এ কারখানা। ক্রিস্টাল ফুড অ্যান্ড বেভারেজ নামের এ প্রতিষ্ঠানটি মাসুম (১৮), রিপন (৩২) ও আলামিন (২৩) নামে তিন কর্মচারীকে আটক করা হয়। পরে প্রতিষ্ঠানটিকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা ও সিলগালা করা হয়।

দুই মাস আগেও অপরিচ্ছন্নতার কারণে একই প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ টাকা জরিমানা ও সতর্ক করেছিল বিএসটিআই।

বিএসটিআইর ফিল্ড অফিসার নোভেরা বিনতে নুর বলেন, এর আগে অসঙ্গতি থাকায় ও বিএসটিআই আইন অমান্য করায় প্রতিষ্ঠানটিকে জরিমানাসহ সতর্ক করা হয়েছিল। এবার জরিমানার পাশাপাশি সিলগালা করা হলো। পানি পরীক্ষার জন্য তিনটি পানির জার বিএসটিআই ল্যাবে নেওয়া হয়েছে। পানি অপরিশোধিত ও জীবাণুযুক্ত হলে প্রতিষ্ঠানটির লাইসেন্সও বাতিল করা হবে।