গণজাগরণ মঞ্চকে প্রশ্নের মুখে ফেলেছে ইমরান

157

গণজাগরণ মঞ্চকে প্রশ্নের মুখে ফেলেছে ইমরান এইচ সরকার! মানুষের মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে?তা না হলে এই ঘৃণ পেশার লোকদের পক্ষালম্বন করবে কেন? মাদকের ব্যবসা করা আর মাদকের গডফাদারদের কাছ থেকে ঘুষ খেয়ে তাদের পক্ষে রাজপথে নামা অংকের ফলাফল একই! এখন ইমরান এইচ সরকারকে গালি দিয়ে বলতে ইচ্ছে করে গণজাগরণ মঞ্চ কি তোর বাবার? বাংলাদেশে রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক কত ইস্যুই না আছে। আমি বলতে চাই তুমি এইমরান এইচ সরকার মাদকেরমত ঘৃণ ইস্যু নিয়ে মাঠে নামলে কেন? গণজাগরণ মঞ্চ কি তোমাকে সেই ক্ষমতা দিয়েছে? তুমি গণজাগরণ মঞ্চকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছো। গণজাগরণ মঞ্চের কৃতিত্ব তোমার একার নয়। আছে আমারও অংশীদারিত্ব। যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল্লাকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা শাহবাগ মোড়ে গণজাগরণ মঞ্চে তোমরা ৮/১০ জন ব্লগার কাদের মোল্লার ফাঁসির দাবী জানিয়ে আসছিলে। এ সংবাদ শুনে তাৎখনিক হাইকোর্টে অবস্থিত আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধী ট্রাইব্যুনাল প্রাঙ্গণ থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সমর্থিত ২২টি সংগঠন নিয়ে গঠিত “সম্মিলিত আওয়ামী সমর্থক জোট” এর নেতা-কর্মীরা ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের তৎকালীন প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আব্দুল হক সবুজের নেতৃত্বে গণজাগরণ মঞ্চে হাজির হয়ে দিনরাত আন্দোলন করতে থাকি। এরপর থেকে শুরু হয় স্বাধীনতার পক্ষের মানুষের ঢল। জনসমুদ্রে পরিণত হয় শাহবাগ চত্বর। এখানে আমারও আছে অবদান। এই গণজাগরণ মঞ্চের আমিও একজন অংশীদার। মাদকের মত ঘৃণ ইস্যু নিয়ে গণজাগরণ মঞ্চকে কলঙ্কিত করার অধিকার নেই ইমরান এইচ সরকারের।

বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ হালিম ঢালী
চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ মাদক বিরোধী সামাজিক আন্দোলন।
৭ জুন ২০১৮ইং।

ফেসবুক থেকে সংগৃহিত।