বরিশালে যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবিতে শিশুসহ নিখোঁজ ৪

78

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার কারখানা নদীর ডিসি ঘাট সংলগ্ন এলাকায় যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবে শিশুসহ ৪ জন নিখোঁজ রয়েছে। আজ রবিবার সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ট্রলার ডুবির খবর পেয়ে বরিশাল ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরী দল কারখানা নদীতে তল্লাশি অভিযান শুরু করে। তবে সবশেষ খবর অনুযায়ী আজ সন্ধ্যা পৌঁনে ৬টা পর্যন্ত ডুবে যাওয়া ট্রলার সনাক্ত করা যায়নি। সন্ধান পাওয়া যায়নি নিখোঁজদের। দুর্ঘটনায় নিখোঁজ কারো মৃত্যু হলে প্রত্যেকের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সাহায্য ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন।

নিখোঁজরা হলো- বাকেরগঞ্জ উপজেলার ফরিদপুর এলাকার ফিরোজ খানের মেয়ে নিলা (১৪), একই এলাকার মো. জামালের ছেলে মো. ইমরান (১৫), একই উপজেলার নলুয়া এলাকার মো. হিরনের ছেলে মো. রিপন (১৫), এবং পার্শবর্তী বাউফল উপজেলার ধুলিয়া এলাকার মো. হারুনের শিশু মেয়ে হাফসা (৪)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাউফল উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ বাকেরগঞ্জের সিমান্তবর্তী কারখানা নদীর ডিসিঘাট থেকে শিয়ালঘুনি ঘাট হয়ে বাকেরগঞ্জ এবং বরিশাল জেলা সদরে চলাচল করে। গতকাল রবিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার নদী ভাঙ্গন কবলিত ডিসিঘাট থেকে শিয়ালঘুনি যাওয়ার উদ্দেশ্যে ট্রলারে যাত্রী তোলা হচ্ছিলো। আকস্মিক ডিসি ঘাটের বিশাল অংশ ভেঙ্গে নদীতে পড়ে। এতে নদীর ওই অংশে হঠাৎ পানির প্রচন্ড ঘূর্নি এবং ঢেউয়ের সৃষ্টি হলে অন্তত ২০ জন যাত্রী বোঝাই ট্রলারটি কাত হয়ে ডুবে যায়। দুর্ঘটনার পর অন্যান্যরা সাতরে তীরে উঠতে সক্ষম হলেও ওই ৪ জন নিখোঁজ হয়।

জেলা পুলিশ সুপার মো. সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, কারখানা নদীতে ট্রলার দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবরি দল কারখানা নদীতে উদ্ধার অভিযান শুরু করেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলের নিরাপত্তা দিচ্ছে।

বাকেরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী সালেহ মোস্তানজির জানান, দুর্ঘটনায় নিখোঁজদের তালিকা করা হচ্ছে। নদীতে উদ্ধার তৎপরতা চলছে। নিখোঁজ কারো মৃত্যু হলে ওই পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেবে জেলা প্রশাসন।