মহেশপুর ৩৮ বছর বয়সীর দপ্তরী হিসেবে নিয়োগ !

70

স্টাফ রিপোর্টার, ঝিনাইদহঃ

সরকারী চাকরীতে প্রবেশের বয়সসীমা হচ্ছে ৩০ বছর । আর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হলে ৩২ বছর । কেও এর বেশি বয়সে চাকরী নিতে বা আবেদনই করতে পারবেন না, এটাই সরকারী নিয়ম । কিন্তু ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার ভালাইপুর সরকারী  প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত দপ্তরী কাম প্রহরী দেলোয়ার হোসেনের বয়স ৩৮ বছর । ভোটার তালিকানুযায়ী তার জন্ম তারিখ ৫ অক্টোবর ১৯৭৯ । ফলে বয়স জালিয়াতি করে চাকরী নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে । ঘটনাটি এখানেই থেমে নেই, আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে । জসিম উদ্দিন নামে এক চাকরী প্রত্যাশী বাদী হয়ে ঝিনাইদহ সহকারী জজ আদালতে একটি মামলা দায়ের করেছেন (যার মামলা নং ১৬০/১৮) । মামলায় নিয়োগ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল  ইসলামসহ মোট ৬ জনকে বিবাদী করা হয়েছে ।

মামলা সুত্রে জানা গেছে মহেশপুর উপজেলায় ২৬টি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয় । এই বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী মহেশপুর উপজেলার ভালাইপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে একজন দপ্তরী কাম প্রহরী পদের বিপরীতে ১৪ জন প্রার্থী আবেদন করেন । গত ৯ জুন মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় । পরীক্ষায় ৮ জন অংশ নেন । পরীক্ষা শেষে মোঃ দেলোয়ার হোসেনকে নিয়োগ দেওয়া হয় । দেলোয়ার হোসেনের জাতীয় পরিচয়পত্রে ৪৪০৮৩৯০০০২৭২ বয়স জালিয়াতির বিষয়টি ফুটে উঠেছে । ঝিনাইদহ জেলা নির্বাচন অফিস থেকে দেলোয়ারের বেশি বয়সের প্রমান মিলিছে । অভিযোগ উঠেছে মোটা অংকের ঘুষের বিনিময়ে সবগুলো পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।  আর এই খাতে লেনদেন হয়েছে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা । এদিকে গত ৩ জুলাই সদ্য দপ্তরীতে নিয়োকারী দেলোয়ার হোসেনের বয়স জালিয়াতির ঘটনাটি ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসককে লিখিতভাবে অবহিত করা হয় ।

এ ব্যাপারে মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ কামরুল ইসলাম ঘুষ দুর্নীতির কথা অস্বাকীর করে জানান, বিধি মোতাবেক নিয়োগ প্রতিক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়েছে । তবে এ ক্ষেত্রে যদি বয়স জালিয়াতি হয়ে থাকে তা আদালত দেখবেন । বিষয়টি নিয়ে ভালাইপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নন্দ দুলাল কবিরাজ জানান, দেলোয়ারের অষ্টম শ্রেনীর সার্টিফিকেটে ও জন্ম নিবন্ধন সনদে বয়স ৩০ সীমার মধ্যে আছে । যাচাই বাছাই কমিটিতেও এমন অভিযোগ উঠেছিল । তারপরও নিয়োগবোর্ড তাকে নিয়োগ দিয়েছেন ।