বন্দর গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে নির্বাচন নিয়ে জটিলতা

48

স্টাফ রিপোর্টার:

অবশেষে আবারও পত্রিকার শিরোনাম হলো বন্দর গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ। এতোদিন শিক্ষার্থীদের কৃতকার্য ও কোচিং সংক্রান্তে সংবাদ প্রকাশিত হলেও এবার প্রকাশ পেয়েছে গভর্ণিং বডির নির্বাচনে কারসাজির পাঁয়তারা নিয়ে । প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, বন্দরের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ বন্দর গার্লস স্কুল এন্ড কলেজে দীর্ঘ দিন ধরে অনির্বাচিত কমিটি দিয়ে পরিচালিত হয়ে আসছে । এ কারণে প্রতিষ্ঠানে অনিয়ম আর দুর্ণীতিতে ঘিরে রাখে কলেজের স্ব-ঘোষিত অধ্যক্ষ বদরুজ্জামান ও স্ব-ঘোষিত সভাপতি হাবিবুর রহমান ।

প্রতিবারই তারা কোন প্রকার নির্বাচন ছাড়াই তারা অশিক্ষিতদের নিয়ে নামকাওয়াস্তে গভর্নিং গঠন করে থাকে । ইদানীং বিষয়টি অভিভাবকদের গোচরে এলে তাদের মধ্য থকে অনেকেই নির্বাচনমুখী হয়ে ওঠেন । পকেট কমিটি গঠনের সুযোগ না থাকায় বিষয়টি নির্বাচন পর্যায়ে পৌঁছায় । তারই প্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের নির্দেশে বন্দর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাকে রিটার্নিং অফিসার নিয়োগ দিয়ে দ্রুত নির্বাচন সম্পন্নের অনুমোদন দেয়া হয় ।

নিয়মতান্ত্রিকভাবে স্কুল নির্বাচনসমূহ সাধারণত শুক্রবারেই হয়ে থাকে । যাতে করে সরকারি-বেসরকারি চাকুরীজীবি অভিভাকরা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেন। কিন্তু রহস্যজনক কারণে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষের পরামর্শ অনুযায়ী
আগামী ২২ সেপ্টেম্বর নির্বাচনের দিন ধার্য করেন । যা নিয়ে গোটা অভিভাবক মহলে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি করে । এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ না করার শর্তে, জনৈক অভিভাবক জানান, এটা নির্বাচনের কোন সিস্টেমের মধ্যে পড়েনা ।

আমরা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করি শুক্রবার ব্যাতিত কোনমতেই আমাদের পক্ষে সময় দেয়া সম্ভব নয় । অথচ শনিবারে নির্বাচনের দিন ধার্য্য করা হয়েছে । কোথাও দেখিনি শনিবারে নির্বাচন হয় । স্কুল-কলেজ নির্বাচনগুলো শুক্রবারেই দেয়া হয় । কার পরামর্শে নির্বাচন শনিবারে দেয়া হয়েছে তা বোধগম্য নয় । তবে এটা অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত। বিষয়টি নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের বিবচনার জন্য সবিনয় অনুরোধ জানাচ্ছি । অপরাপর অভিভাবক একই শর্তে জানান, একটা ভাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এভাবে মনগড়া নিয়মে চলতে পারেনা। সরকারি কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় প্রতিষ্ঠানটির সুনাম ধরে রাখতে হবে । অনিয়মে জর্জরিত হয়ে আছে প্রতিষ্ঠানটি । যেই ব্যাক্তি হাইস্কুলে প্রধাণ শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ লাভ করে সে কোন যোগ্যতায় কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে দাবি করেন। বিষয়টি জনসম্মুখে তথা অভিভাবক মহলে পরিস্কার করা অত্যাবশ্যক । আর তাছাড়া এবারের নির্বাচনের বিষয়টি খুবই রহস্যের সৃষ্টি করেছে । মনোনয়নপত্রের জামানতের ফি রাখা হয়েছে ২০ হাজার টাকা । বাংলাদেশের ইতিহাসে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এরূপ নজির নেই ।