নাব্যতা সংকটের কারণে দেশের তিন নৌরুটেই জনভোগান্তি

25

নাব্যতা সংকটের কারণে দেশের তিন রুটেই ঈদযাত্রায় ভোগান্তি বেড়েছে। কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া ফেরি রুটে দেড় সপ্তাহ ধরে বাস-ট্রাক পারাপার প্রায় বন্ধ রয়েছে। পাশাপাশি পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া, শরীয়তপুর-চাঁদপুরসহ প্রায় সকল নৌরুটে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল করছে।

আজ রবিবার সকাল থেকে সকল রুটে ফেরি সীমিতভাবে চলাচল করছে। এতে পারাপারের অপেক্ষায় থাকা যানবাহনের তীব্র জট সৃষ্টি হচ্ছে। ফলে নির্বিঘ্নে ঘরে ফেরা নিয়ে সংশয়ে রয়েছে ঈদ যাত্রায় ঘরে ফেরা মানুষ।

এদিকে বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তারা বলছেন, লৌহজং পয়েন্টে ড্রেজিং চলছে। আজ রবিবারের মধ্যেই পুরোপুরি চালু হবে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী চ্যানেল। তখন স্বাভাবিক হয়ে যাবে তিন পয়েন্টের ফেরি পারাপার। তবে এককথায় আস্থা রাখতে পারছেন না বিআইডব্লিউটিএর কর্মচারীরাই।

বিআইডব্লিউটিসি’র শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক গিয়াস উদ্দিন পাটোয়ারি সাংবাদিকদের জানান, বিকল্প চ্যানেলে পানির গভীরতা আছে ৪-৫ ফুটের মতো। কিন্তু ফেরি চালাতে প্রয়োজন সাড়ে ৭ ফুটের মতো। এই চ্যানেলটিতে বর্তমানে পলি জমে নাব্যতা সংকট দেখা দিয়েছে। এ কারণে পূর্বের সরাসরি মূল চ্যানেল দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। তাও খুব সাবধানে পার হতে হচ্ছে চ্যানেল।

পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে স্বাভাবিক সময়ে দৈনিক ৪ হাজারের মতো যানবাহন পারাপার হতো। সেখানে এখন দিন-রাত মিলিয়ে ৬-৭ হাজার যান পার করেও পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছে।

চাঁদপুর-হরিণাঘাটেও বেড়ে গেছে যানবাহনের চাপ। সবচেয়ে বেশি জটিলতায় পড়েছে নিয়মিত কাঁঠালবাড়ী হয়ে চলাচলকারী প্রায় ৩০০-৪০০ বাস।